কিভাবে সিম রেজিস্ট্রেশন বাতিল করব | সিম নিবন্ধন বাতিল করার নিয়ম ২০২২

আপনি কি কখনও এমন পরিস্থিতিতে পড়েছেন যেখানে অন্য কেউ অজান্তে আপনার আইডি কার্ডের সাথে একটি সিম নিবন্ধন করে এবং তা ব্যবহার ​​করতে থাকে? হয়তো বা। এক্ষেত্রে সিম রেজিস্ট্রেশন কিভাবে বাতিল করতে হয় তা জানা জরুরি।

কিভাবে সিম রেজিস্ট্রেশন বাতিল করব | সিম নিবন্ধন বাতিল করার নিয়ম ২০২২

কিন্তু আপনি কি জানেন যে এই অনিবন্ধিত সিম দিয়ে তিনি আপনার নামে করা সিম দিয়ে যা খুশি করতে পারবেন? আর এর সকল দায়িত্ব আপনাকেই বহন করতে হবে। আপনি কিছু ভুল না করলেও, দায়ভার সম্পূর্ণ আপনার উপর পড়বে। এমনকি এর জন্য আপনাকে জেল খাটতে হতে পারে।

এজন্য আপনাকে সবসময় এই বিষয়টির প্রতি গভীর মনোযোগ দিতে হবে। কিন্তু ঘটনাটা ঘটলে কি হবে? আপনি কি মনে করেন এই সব শেষ? একদমই না, আপনি জেনে খুশি হবেন যে আপনার অজান্তে আপনার নামে নিবন্ধিত সিমটি পুনরায় নিবন্ধিত হয়েছে বা আপনি আপনার নিবন্ধিত সিম বাতিল করতে পারেন।
আর আমাদের আজকের আলোচনা সেই বিষয়কে কেন্দ্র করেই হতে চলেছে। হ্যাঁ, আমরা আজ জানবো কিভাবে আপনি না জেনে আপনার নিবন্ধিত সিম বাতিল করতে পারেন। চলুন এবার জেনে নেওয়া যাক আমাদের মূল বিষয়বস্তু:-

১। আমার নামে সিম নিবন্ধন করা আছে কিনা তা কিভাবে চেক করব?

প্রথমে আপনাকে খুঁজে বের করতে হবে আপনার নামে কোনো সিম নিবন্ধিত আছে কিনা। কারণ এটা ছাড়া আপনি এটা বলতে পারবেন না। তাই আপনি যদি নিজেকে একজন সত্যিকারের বুদ্ধিমান মানুষ হিসেবে পরিচয় দিতে চান, তাহলে আগে খুঁজে বের করুন আপনার নামে কোন নম্বর নিবন্ধিত আছে।

২। আপনাকে যা করতে হবে তা হল আপনার নামে সিম নিবন্ধন পরীক্ষা করুন।

এক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই আপনার NID এর শেষ চারটি সংখ্যা বা সংখ্যা জানতে হবে। আর এর জন্য কোনো চার্জ লাগবে না।

এখন আপনাকে যা করতে হবে:-
  • প্রথমে আপনার ফোনের কল অপশনে যান। কল অপশনে প্রবেশ করার পর আপনাকে নির্ধারিত কোড ডায়াল করতে হবে। কোড- *16001#
প্রথমে আপনার ফোনের কল অপশনে যান
  • এর পরে আপনাকে আপনার জাতীয় পরিচয়পত্রের শেষ চারটি সংখ্যা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হবে যা আপনাকে সেখানে টাইপ করতে হবে। NID এর শেষ সংখ্যা মনে রাখবেন।
NID এর শেষ সংখ্যা মনে রাখবেন।
  • তারপর একটা পপ আপ উইন্ডো আসবে, সেটা ওকে করে দিবেন।
তারপর একটা পপ আপ উইন্ডো আসবে
  • আপনি আপনার NID এর চারটি সংখ্যা টাইপ করার পরে একটি বার্তা উপস্থিত হবে। ১ থেকে ২ মিনিট সময় লাগতে পারে। যদি কোন কারনে NID কার্ডের শেষে 4 সংখ্যা ভুল দেন (ID last 4 digits mismatched with registered SIM) তাহলে এটা লেখা আসবে। অবশ্যই সঠিক নাম্বার টাইপ করতে হবে। যদি সঠিক নাম্বার টাইপ করেন, তাহলে আপনার NID কার্ড দিয়ে কয়টা সিম কার্ড রেজিস্ট্রেশন করা আছে। সব ইনফরমেশন মেসেজে দিয়ে দিবে। নিচের স্ক্রিনশটটি দেখুন।
সব ইনফরমেশন মেসেজে দিয়ে দিবে। নিচের স্ক্রিনশটটি দেখুন।

আশা করি আপনি উপরের এই বিষয়টা বুঝতে পেরেছেন।

আরো সহজ ভাষায়ঃ-
আপনি যে বার্তাটি পেয়েছেন তাতে আপনি দেখতে পারবেন আপনার নামে কতগুলি প্রি-পেইড বা পোস্ট-পেইড সিম রয়েছে। কোন কোম্পানি কতগুলো সিম ব্যবহার করছে তাও দেখতে পারবেন। এবং এর মধ্যে থেকে, আপনার কাছে অপরিচিত মনে হয় এমন নম্বরটি খুঁজে বের করুন। আপনার অজান্তেই রেজিস্ট্রার যে সিমটি নিবন্ধন করেছেন সেটি হতে পারে।

৩। আপনার অজান্তে আপনার আইডি কার্ড দিয়ে সিম নিবন্ধন করা কি আদৌ সম্ভব?

প্রথমে আমরা এই সমস্যাটি একটু দেখি। একটু ভেবে দেখুন, কিন্তু এখন আমরা শুধু ভোটার আইডি কার্ড বা এনআইডি কার্ড নিয়ে সিম রেজিস্ট্রেশন করা সম্ভব নয়। এই জন্য আমাদের কিছু অতিরিক্ত সমস্যা আছে। এর মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল আঙুলের ছাপ। যা ছাড়া সিম রেজিস্ট্রেশন কখনই সম্ভব নয়। আর এই ব্যবস্থা এখন সব সিম অপারেটর চালু করেছে। সেক্ষেত্রে এনআইডি থাকলে কেউ সিম নিবন্ধন করতে পারবে না। কারণ আঙুলের ছাপ ছাড়া এটা অসম্ভব।

এর মানে হল যে কেউ শুধু আপনার NID দ্বারা সিম নিবন্ধন করতে পারবে না। সেক্ষেত্রে আপনি স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে পারেন। কিন্তু একটা জিনিস আপনি জানেন, ব্যতিক্রম যদি সব জায়গায় না হয়, তাহলে কেন অন্য কেউ আপনার NID দিয়ে সিম রেজিস্ট্রেশন করতে পারে। গল্পটি এমন হতে পারে যে অপরাধী কোথাও থেকে আপনার আঙ্গুলের ছাপ সংগ্রহ করেছে এবং আপনার NID-এ সিম নিবন্ধন করেছে। যদিও এটি খুব বিরল, তবুও এটি ঘটছে।

এক্ষেত্রে কেউ আপনার আঙুলের ছাপ সংগ্রহ করে সিম নিবন্ধন করলে আপনাকে ভোগান্তিতে পড়তে হতে পারে। কিন্তু আমাদের সমাধান আছে। হ্যাঁ আল এটা আমার কাছে বেশ বাজে শোনাচ্ছে, মনে হচ্ছে বিটি আমার জন্য নয়।

৪। সিম নিবন্ধন বাতিল করার নিয়ম।

এত কিছুর পরেও যদি আপনার অজান্তে সিম রেজিস্ট্রার হয়ে যায়, তাহলে আসলেই কিছু করার নেই। তবে আমরা এই সিমটি ধ্বংস করতে পারি। তার মানে আমি আমার সিম রেজিস্ট্রেশন বাতিল করতে পারি। ফলে আমাদের সেই দায়িত্ব কোনোভাবেই নিতে হবে না। তাহলে এটা কিভাবে করা যায় সেই প্রশ্ন এখন নিশ্চয়ই আপনার মনে ঘুরপাক খাচ্ছে, তাই না? আর অপেক্ষা নয়। এই পর্যায়ে আমরা এই নিবন্ধিত সিম বাতিল করার নিয়ম সম্পর্কে জানব।

এবং আপনার কাজ সম্পন্ন করতে আমাদের সাথে থাকুন।এছাড়াও নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি খুব সাবধানে অনুসরণ করুন। সিম নিবন্ধন বাতিল করার অর্থ হল নিবন্ধিত সিম বাতিল করার জন্য, আপনাকে আপনার অপারেটরের নিকটতম কাস্টমার কেয়ারের আশ্রয় নিতে হবে। তাই শুরুতেই আপনি কাছের কাস্টমার কেয়ারে যান।

আপনার অজান্তে আপনার নামে নিবন্ধিত সিম নিন। যাইহোক, যদি আপনার কাছে এটি না থাকে তবে আপনাকে অবশ্যই আপনার সাথে NID কার্ডের মতো প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিতে হবে। আর এর সঙ্গে থাকবে নিবন্ধিত সিমের কাগজের চিঠি। এবং আপনি সেখানে থাকতে হবে।

এভাবে আপনি নিকটস্থ কাস্টমার কেয়ারে গিয়ে আপনার কাজ সেরে নিতে পারবেন। এবং আপনার মাথা থেকে একটি ভারী বোঝা নেমে আসবে। যেহেতু আপনি এটি ঠিক না করলে, অনেক লোক আপনার নামে খারাপ কাজ করতে পারে।

অবশেষেঃ-

উপরের আলোচনার মাধ্যমে আমরা শিখেছি কিভাবে একটি সিমের নিবন্ধন বাতিল করতে হয়। এবং সেই পদ্ধতি অনুসরণ করে আপনি আপনার নিবন্ধিত সিম বাতিল করতে সক্ষম হবেন। কিন্তু এখানে একটি স্থায়ী সমাধান প্রয়োজন। কারণ আপনার নামে যে কেউ অজান্তে সিম খুলেছে তার দায় কে নেবে? আর আইনত এটা একটা গুরুতর অপরাধ, তাই না?
সেক্ষেত্রে স্থায়ী সমাধানের জন্য পরিস্থিতি খুব বিশৃঙ্খল হয়ে পড়লে পুলিশের সাহায্য নিন। এবং যদি আপনি খুব বেশি দূরে যেতে না চান তবে আপনাকে অবশ্যই সিম নিবন্ধন বাতিল করতে হবে। যাতে আপনি নিরাপদে থাকতে পারেন। এতে সমস্যা কিছুটা কমবে।

আশা করি উপরের পোস্টটি কাজে আসবে যদি আপনি এমন পরিস্থিতির শিকার হন। আমরা সর্বদাই আপনাদের মাঝে এমনই টিপস-এন্ড-ট্রিকস দেওয়ার চেষ্টা করি। যদি আজকে রিপোর্ট সম্পর্কে আপনার কোন মন্তব্য থাকে, নিঃসংকোচে কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করে ফেলুন। সম্পুর্ন পোস্ট টি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।
Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url